হেপাটাইটিস বি

হেপাটাইটিস–বি ভাইরাসজনিত জন্ডিস (Hepatitis B Virus Jaundice)

সাধারণত যৌন সঙ্গমের মাধ্যমে হেপাটাইটিস–বি ভাইরাস দ্বারা এ রোগটি হয় । প্রধানত যকৃতের ওপর এর ক্ষতিকারক দিকটি সবচেয়ে বেশি। ফলে জন্ডিস দেখা দেয়। রোগের সুপ্তিকাল ৬ সপ্তাহ থেকে ৬ মাস। বেশিভাগ রোগীই আপনা-আপনি ভাল হয়ে যায়। তবে ৫-১৫% রোগী ভালো হয় না। এবং এদের শরীরে ভাইরাসটি থেকে যায় এবং রোগ ছড়াতে পারে। অনেকদিন রোগে ভোগার পর রোগীর সিরোসিস এবং ক্যান্সারের মত জটিলতা দেখা দিতে পারে ।
সাধারণত হেপাটাইটিস –বি ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর রক্ত, মুখের লালা, যোনিরস এবং বীর্যে এই ভাইরাস থাকে ।

কতদিন পর্যন্ত এ রোগটি ছড়ায়

রোগের সুপ্তিকাল অর্থাৎ জন্ডিস দেখা দেবার ১ মাস পূর্ব থেকে রোগ থাকাকালীন সময়ে এ রোগটি ছড়ায়। রোগ ভালো হয়ে গেলেও ৫-১৫% রোগীর কাছ থেকে এ ভাইরাসটি দীঘদিন যাবত ছড়াতে পারে ।

হেপাটাইটিস –বি কিভাবে ছড়ায়

  • রত্তের মাধ্যমে
  • সংক্রামিত সিরিঞ্জ এবং সূচের মাধ্যমে
  • মায়ের শরীর থেকে নবজাতকের রক্তে বা শরীরে
  • যৌন মিলনে মাধ্যমে

রোগের লক্ষণ

অন্যান্য ভাইরাল হেপাটাইটিসের লক্ষণের মত হেপাটাইটিস –বি ভাইরাসের লক্ষণ হয়ে থাকে। যেমন: জন্ডিস, দুর্বল লাগা, পেটে ব্যথা করা, খাবার হজম না হওয়া, রুচির অভাব ইত্যাদি। এ সময় যকৃত বড় হয়ে যায়, ফুলে যায়, ব্যথা করে। প্রস্রাব হলুদ রং এর হয়। গায়ের চামড়া এবং চোখের সাদা অংশ হলুদ হয়ে যায়।

প্রতিরোধ

  • হেপাটাসইটিস –বি টিকা দিয়ে এ রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।
  • রক্ত গ্রহণ করার পূর্বে পরীক্ষা করে দেখা প্রয়োজন হেপাটাইটিস –বি ভাইরাস আছে কিনা।
  • রক্ত পরীক্ষা না করে রক্ত দেয়া এবং নেওয়া উচিত না।

কাদের ক্ষেত্রে জরুরিভাবে হেপাটাইটিস – বি এর ইম্মুনোগ্লোবিউলিন টিকা দেয়া জরুরি

সূত্রঃ প্রজনন স্বাস্থ্য সহায়িকা, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, ইউ এন এফ পি এ , ভি এইচ এস এস, ২০০২