বয়ঃসন্ধিকাল

বয়ঃসন্ধিকালীন পরিবর্তন

দশ বছর বয়স থেকে বড় হওয়া শুরু হলেও সবার বেড়ে ওঠা একই রকম নয়। কেউ তাড়াতাড়ি বড় হয়ে ওঠে, কেউবা কিছুটা দেরিতে । এতে দুশ্চিন্তার কিছু নেই । কারণ, একেক জন মানুষের শরীরের গঠন একেক রকম । একজন মানুষের শরীরের বৃদ্ধি নির্ভর করে তার শরীরের গঠন আর পুষ্টির উপর ।

এ সময় ছেলে-মেয়েদের শারীরিক পরিবর্তনের পাশাপাশি মানসিক পরিবর্তন হয় । সবার ক্ষেত্রে পরিবর্তনগুলো একই সময়ে নাও হতে পারে, তবে পরিবর্তনগুলো…

আরও...

বয়ঃসন্ধিকালে ঝুঁকি

বয়ঃসন্ধিকালের ঝুঁকিসমূহ

  • অনেকেই মাদকাসক্তি ও ধূমপানসহ অন্যান্য অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়তে পারে।
  • অবৈধ ও অনিরাপদ যৌন সম্পর্ক, ফলস্বরূপ অনাকাঙ্খিত গর্ভসঞ্চার, এইচআইভি/এইডস ও অন্যান্য যৌনরোগ হতে পারে।
  • অশ্লীল, অনুমোদিত ও অবৈজ্ঞানিক বই পুস্তক পড়ে ভুল তথ্য জেনে ভুল পথে পরিচালিত হতে পারে।
  • অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের ফলে মোটা হয়ে যেতে পারে। আবার সুষম খাবার না খাওয়ার কারণে রুগ্ন হয়ে যেতে পারে।

বয়ঃসন্ধিকালের ঝুঁকির কারণ

  • প্রজনন স্বাস্থ্য পরিচর্যা সম্পর্কে সঠিক ও…

    আরও...

কিশোরদের বয়ঃসন্ধিকালীন পরিবর্তন

সাধারণত ১০-১২ বছর বয়সে একটি ছেলের শারীরিক পরিবর্তন শুরু হয়। যেমন-উচ্চতা বাড়তে থাকে, কাঁধ চওড়া হয় এবং মাংসপেশি সুঠাম ও সবল হতে থাকে । ছেলেরা যে বড় হচ্ছে তার লক্ষণ হলো দাড়ি-গোঁফ গজানো। এ সময় গলার স্বরেরও পরিবর্তন হয়।

বয়ঃসন্ধিকালে ছেলেদের শরীরের এসব পরিবর্তন হরমোনের কারণে হয়ে থাকে । হরমোন হচ্ছে শরীরের ভেতরে তৈরি এক ধরনের গ্রন্থিরস যা দেহকে সক্রিয় রাখে এবং দেহের বৃদ্ধি ও উন্নয়নে সহায়তা করে ।…

আরও...

স্বপ্নদোষ

সাধারণত ১০-১২ বছর বয়সে একটি ছেলের শারীরিক পরিবর্তন শুরু হয় । যেমন-উচ্চতা বাড়তে থাকে, কাঁধ চওড়া হয় এবং মাংসপেশি সুঠাম ও সবল হতে থাকে । ছেলেরা যে বড় হচ্ছে তার লক্ষণ হলো দাড়ি-গোঁফ গজানো । এ সময় গলার স্বরেরও পরিবর্তন হয়

বয়ঃসন্ধিকালে ছেলেদের শরীরের এসব পরিবর্তন হরমোনের কারণে হয়ে থাকে । হরমোন হচ্ছে শরীরের ভেতরে তৈরি এক ধরনের গ্রন্থিরস যা দেহকে সক্রিয় রাখে এবং দেহের বৃদ্ধি ও উন্নয়নে সহায়তা করে।…

আরও...

কিশোরীদের বয়ঃসন্ধিকালীন পরিবর্তন

যখন একটি মেয়ে ১০-১২ বছর বয়সে পৌঁছে, তখন তার শারীরিক পরিবর্তন শুরু হয়। যেমন- উচ্চতা বাড়ে, মাসিক শুরু হয়, স্তন বড় হয়, বগলে ও যৌনাঙ্গে লোম গজায় । কোমর সরু হয়, উরু ও নিতম্ব ভারি হয়, জরায়ু ও ডিম্বাশয় বড় হয়। এই পরিবর্তনগুলোই হচ্ছে মেয়েদের বড় হওয়ার লক্ষণ । মাসিক একটি মেয়ের শরীরের স্বাভাবিক প্রক্রিয়া, যা সাধারণত ১০-১৩ বছর বয়সে শুরু হয় এবং স্বাভাবিক নিয়মে ৪৫-৪৯ বছর বয়স পর্যন্ত চলে…

আরও...

মাসিকচক্র

মাসিকের সময়ে রক্ত যাতে বাইরে গড়িয়ে না পড়ে সেজন্য স্যানিটারি ন্যাপকিন বা প্যাড, পরিষ্কার কাপড় বা তুলা ব্যবহার করতে হয় । এগুলো প্রয়োজন অনুযায়ী দিনে কয়েকবার বদলাতে হয় । এছাড়া নানা মাপের জাংগিয়া বা প্যান্টি পাওয়া যায় । কাপড় বা তুলার সাথে এগুলো ব্যবহার করা যায় । এসময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার দিকে বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে, যৌনাঙ্গ পরিষ্কার রাখতে হবে । পরিচ্ছন্ন শুকনা কাপড় পরতে হবে, তা না হলে একই কাপড় যদি…

আরও...